ইতিকাফের ফযিলত

عن عائشة أن النبي صلى الله عليه وسلم قال من اعتكف إيمانا واحتسابا غفر له ما تقدم من ذنبه

সূত্র: ফয়জুল ক্বাদীর হাদিস: ৮৪৮০

عن الحسين بن علي رضي الله عنهما قال قال رسول الله صلى الله عليه وسلم من اعتكف عشرا في رمضان كان كحجتين وعمرتين

অর্থ: “রমযানে দশদিন ইতিকাফ করলে দুটি হজ ও উমরার সওয়াব হবে”।
সূত্র: শুয়াবুল ঈমান (বাইহাকী) হাদিস: ৩৯৬৬

عَنْ ابْنِ عَبَّاسٍ أَنَّ رَسُولَ اللهِ صلى الله عليه وسلم قَالَ فِي الْمُعْتَكِفِ هُوَ يَعْكِفُ الذُّنُوبَ وَيُجْرَى لَهُ مِنْ الْحَسَنَاتِ كَعَامِلِ الْحَسَنَاتِ كُلِّهَا

অর্থ: হযরত ইবনু ‘আব্বাস রা. থেকে বর্ণিত, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ই‘তিকাফকারী সম্পর্কে বলেনঃ সে নিজেকে গুনাহ থেকে বিরত রাখে এবং নেককারদের সকল নেকী তার জন্য লেখা হয়।
সূত্র: সুনানে ইবনে মাজা হাদিস: ১৭৮১

ومن اعتكف يومًا ابتغاءَ وجهِ اللهِ جعل اللهُ بينه وبين النّارِ ثلاثَ خنادقَ كلُّ خندقٍ أبعَدُ ممّا بين الخافِقَيْن

অর্থ: যে ব্যক্তি তার কোনো ভাইয়ের যে কোনো প্রয়োজন পূর্ণ করে দিবে, আল্লাহ তাকে দশ বছর নফল ইতিকাফের সওয়াব দান করবেন। আর যে ব্যক্তি আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য একদিন ইতিকাফ করবে; আল্লাহ পাক তার ও জাহান্নামের মাঝে তিন খন্দক সমপরিমান দূরত্ব সৃষ্টি করে দিবেন। আর এক খন্দকের দূরত্বের পরিমাণ হলো আসমান-জমীনের দূরত্ব সমপরিমাণ
সূত্র: শুয়াবুল ঈমান (বাইহাকী) হাদিস: ৩৯৬৫ তবরানী: ৭৩২৬

…বাড়ি মেহমান গেলে-
১. পার্সোনালি সময় দেয়
২. ভিআইপি খাবার দেয়
৩. হাদিয়া দেয়।

وَمَا يَزَالُ عَبْدِي يَتَقَرَّبُ إِلَيَّ بِالنَّوَافِلِ حَتَّى أُحِبَّهُ ، فَإِذَا أَحْبَبْتُهُ كُنْتُ سَمْعَهُ الَّذِي يَسْمَعُ بِهِ ، وَبَصَرَهُ الَّذِي يُبْصِرُ بِهِ ، وَيَدَهُ الَّتِي يَبْطِشُ بِهَا ، وَرِجْلَهُ الَّتِي يَمْشِي بِهَا ، وَإِنْ سَأَلَنِي لأُعْطِيَنَّهُ ، وَلَئِنْ اسْتَعَاذَنِي لأُعِيذَنَّهُ
সূত্র: সহিহ বুখারী হাদিস: ৬৫০২

নবীজি সা. এর ইতিকাফ

হাদীস শরীফে আরও বর্নিত হয়েছে-
ﻋَﻦْ ﺃَﺑِﻲ ﻫُﺮَﻳْﺮَﺓَ ﻗَﺎﻝَ ﻛَﺎﻥَ ﻳَﻌْﺮِﺽُ ﻋَﻠَﻰ ﺍﻟﻨّﺒِﻲِّ ﺻَﻠّﻰ ﺍﻟﻠﻪُ ﻋَﻠَﻴْﻪِ ﻭَﺳَﻠّﻢَ ﺍﻟﻘُﺮْﺁﻥَ ﻛُﻞّ ﻋَﺎﻡٍ ﻣَﺮّﺓً، ﻓَﻌَﺮَﺽَ ﻋَﻠَﻴْﻪِ ﻣَﺮّﺗَﻴْﻦِ ﻓِﻲ ﺍﻟﻌَﺎﻡِ ﺍﻟّﺬِﻱ ﻗُﺒِﺾَ ﻓِﻴﻪِ، ﻭَﻛَﺎﻥَ ﻳَﻌْﺘَﻜِﻒُ ﻛُﻞّ ﻋَﺎﻡٍ ﻋَﺸْﺮًﺍ، ﻓَﺎﻋْﺘَﻜَﻒَ ﻋِﺸْﺮِﻳﻦَ ﻓِﻲ ﺍﻟﻌَﺎﻡِ ﺍﻟّﺬِﻱ ﻗُﺒِﺾَ ﻓِﻴﻪِ .
হযরত আবু হুরায়রা রাযিঃ বলেছেনঃ হযরত জিবরীল প্রতি বছর হযরত নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে একবার কুরআন শোনাতেন। কিন্তু যে বছর তাঁর ওফাত হয় সে বছর দুই বার শোনালেন। নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম প্রতি বছর দশ দিন ইতিকাফ করতেন। কিন্তু ইন্তেকালের বছর তিনি বিশ দিন ইতিকাফ করেছেন। সনদ সহীহ৷
সূত্র: সহীহ বুখারী হাদিস: ৪৯৯৮

About H.M.Abu Sufean

Leave a Reply

Your email address will not be published.